অযোধ্যা মামলার রায়’কে চ্যালেঞ্জ করল জামিয়াত-উলেমা-এ-হিন্দ

রূপসী বাংলা কলকাতা ডেস্ক: ফের বিতর্কিত অযোধ্যা মামলায় সুপ্রিম কোর্টের রায়’কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে পিটিশন জমা করল মুসলিম বডি জামিয়া উলেমা-এ-হিন্দ। শীর্ষ আদালত জানিয়েছে বিতর্কিত ওই জমিতে মন্দির তৈরি হবে।

হিন্দুরা দাবি করেছে, ২.৭৭ একর জমি ভগবান রামের জন্মস্থান। অন্যদিকে বহু যুগ থেকে বাবরি মসজিদও ওই জায়গায় ছিল যতদিন না কর সেভকরা ১৯৯২ সালে তা ধ্বংস করে। এই বিষয়ে দেশজুড়ে সমস্যা তৈরি করেছে। বলা যায় আলোড়ন ফেলতে সক্ষম হয়েছে।

প্রথমে না বললেও নভেম্বর মাসের ১৭ তারিখ ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল-ল-বোর্ড জানিয়ে দিয়েছিল অযোধ্যা মামলায় রিভিউ চাইবে মুসলিমরা।

এদিন বৈঠক থেকে বেরিয়ে জমিয়ত উলেমা-এ হিন্দের মৌলানা আরশাদ মাদানি বলেন, ‘আমরা জানি আমাদের রিভিউ-এর দাবি ১০০ শতাংশ খারিজ হয়ে যাবে। কিন্তু আমরা রিভিউ-এর আবেদন জানাব, এটা আমাদের অধিকার। এর আগে এই মামলায় রিভিউ চায়নি শুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড জানিয়ে দেয় যে তারা কোনও রিভিউ চাইবে না। অর্থাৎ সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছে তারা।

রায় বেরনোর পরই সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের আইনজীবী জাফারিয়াব জিলানি বলেন, ” আমরা এই রায়ে সন্তুষ্ট নই। এতে অনেক ভুল তথ্য আছে। রিভিউ করা যাবে কিনা, সেটা আমরা আলোচনা কর ব। তারপরই পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।” তবে, এই রায়কে সম্মান জানানোর পাশাপাশি শান্তি বজায় রাখার আর্জি জানিয়েছেন তিনি।

সুপ্রিম কোর্টের রায়ে, অযোধ্যার বিতর্কিত জমি পাচ্ছেন হিন্দুরাই, তৈরি হবে রাম মন্দির। অন্যদিকে, বিতর্কিত জমি বাদে অযোধ্যায় ৫ একর জমি দেওয়া হবে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে। সেখানে তৈরি হতে পারে মসজিদ। ২.৭৭ একরের সেই বিতর্কিত জমি হিন্দুদের দেওয়ার কথাই বলা হয়েছে এই রায়ে। বলা হয়েছে বাবরি মসজিদ কোনও ফাঁকা জমিতে তৈরি হয়নি। আগে কোনও নির্মাণ ছিল ওই জমিতে। তবে ঠিক কি ছিল, সেটা আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে জানাতে পারেনি বলে জানিয়েছেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ।

কিন্তু তৈরি হবে মসজিদও। বিতর্কিত জমিতে নয়। অন্য জমিতে মসজিদ তৈরি করা হবে। সেই জমি কোথায়, তা জানানো হয়নি তবে তাদের জন্য ৫ একর অর্থাৎ প্রায় দ্বিগুণ জমি বরাদ্দ করা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে নির্মোহী আখড়া সেবায়েত নয়। তাদের ট্রাস্টের সদস্য করার কথা বলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *