অস্তিত্ব সঙ্কট: হাল ধরা উচিত প্রিয়াঙ্কার, মন্তব্য কংগ্রেস সাংসদের

রূপসী বাংলা কলকাতা ডেস্ক: লোকসভা নির্বাচনের পর দলের বর্তমান অবস্থার দায় নিজের কাঁধে নিয়ে কংগ্রেস সভাপতি পদ থেকে ইস্তফা দেন রাহুল গান্ধী৷ তার ইস্তফা দেওয়ার প্রসঙ্গে প্রকাশ্যে আসার সময় থেকেই কংগ্রেস থেকে নেতা মন্ত্রীদের ইস্তফা দেওয়ার প্রায় হিড়িক পড়ে যায়৷

রাহুলের পদত্যাগের পর তা এমন জায়গায় পৌঁছেছে যেখানে কর্ণাটকে প্রায় মুখ থুবড়ে পড়েছে জোট সরকার৷ একদিকে কংগ্রেসের প্রায় সব নেতা যেখানে ইস্তফাপত্র দিয়েছেন, সেখানে পিছিয়ে নেই জেডিএসের মন্ত্রীরাও৷ ফলে কর্ণাটকে এই মুহূর্তে জোট সরকারের অবস্থা টালমাটাল৷ এমতাবস্থায় কংগ্রেসকে ভরাডুবির হাত থেকে বাঁচাতে গান্ধী পরিবারের আরেক সদস্য প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর দিকেই তাকিয়ে অনেকে৷ মধ্যপ্রদেশ বালকি ওয়ার্কস ডিপার্টমেন্টের মন্ত্রী কংগ্রেস সাংসদ সজ্জন ভর্মা সোমবার কংগ্রেস প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর নাম উল্লেখ করেন৷ তাঁর মতে প্রিয়াঙ্কাই বেস্ট চয়েস৷

নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে সজ্জন জানান, নেহরু-গান্ধী পরিবারের কোনও ব্যক্তিকে বাদ দিয়ে কংগ্রেসকে কল্পনা করা অসম্ভব৷ এটাই সবথেকে উপযুক্ত সময় যখন প্রিয়াঙ্কার কংগ্রেসের দায়িত্ব নিজের কাঁধে নেওয়া উচিত৷
উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে বৃহস্পতিবার রাহুল গান্ধী কংগ্রেস সভাপতির পদ থেকে সরে দাঁড়ান৷ তিনি ট্যুইট করেও এই বিষয়ে জানান৷ তাঁর স্পষ্ট বক্তব্য, কংগ্রেসের উন্নতির ক্ষেত্রে ব্যর্থতার দায় তিনি নিজের কাঁধে নিয়ে তিনি সরে দাঁড়াচ্ছেন৷

এদিকে, গতকালই জোট সরকারকে বিপদে ফেলে মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামীর কাছে ইস্তফাপত্র জমা দেন কংগ্রেসের ২২ জন মন্ত্রী। কংগ্রেসে একের পর এক উইকেট পড়ছে, সেখানে পিছিয়ে নেই জেডিএস-ও৷ সোমবারই জেডিএস মন্ত্রীরাও পদত্যাগ করবেন বলে জানা যায়৷ এমতাবস্থায় কংগ্রেসের ভবিষ্যত কী সেই প্রশ্ন ফের একবার তুলছে রাজনৈতিক মহল৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *