আজ পয়লা ফাল্গুন

আজ পয়লা ফাল্গুন। আর ফাল্গুনের সওয়ার হয়ে এসেছে ঋতুরাজ বসন্ত।
 
গাছে গাছে সবুজ পাতা আর নানা রঙ্গের ফুল। শিমুল বন আর কৃষ্ণচূড়ারা সেজেছে সূর্যের সঙ্গে তাল মিলিয়ে রক্তিম রঙে।
 
কোকিলেরা ধরেছে গান। ভ্রমরেরা গুনগুনিয়ে উঠছে তালে তালে। কান পাতলে শোনা যাচ্ছে পাতা ঝরার শব্দ।
 
আজকে তরুণীরা বাসন্তি শাড়ি পড়েছে। মাথায় তুলেছে গাঁদা ফুলের মালা। প্রকৃতির মতো করেই সাজিয়েছে নিজেদেরকে। তরুণরাও সেজেছে। পরেছে হলুদ পাঞ্জাবি। শুধু হলুদ নয়, তার সঙ্গে থাকে পলাশ রঙ। আগুন রঙ। তবে শুধু বাহ্যিক পোশাকেই নয়, তারুণ্যর হৃদয়েও লাগে বসন্তর রঙ। মনও সাজে সে রঙে।
 
ওত নাগরিক জীবন। গ্রাম-বাংলার আমেজটা ভিন্ন। বিশেষ আয়োজনে চলেছে পিঠা উৎসব।
চীনেও হয় বসন্ত বরণ। বসন্ত বরণ উৎসব চীনের সবচেয়ে বড় উৎসব। চন্দ্রপুঞ্জিকা অনুযায়ী এ উৎসব উদযাপন করা হয়। চৈনিক ভাষায় সিন চুন খোয়াইলা বলে পারস্পরিক শুভেচ্ছা বিনিময় করা হয়। বাংলা ভাষায় অনুবাদ করলে এর অর্থ দাঁড়ায় আপনাকে বসন্তের শুভেচ্ছা।
 
ফাল্গুন ও চৈত্র এ দু মাস বসন্ত ঋতু। কিন্তু এ নিয়ম ছাড়িয়ে যদি বাঙালির অনুভবের জায়গা থেকে বলি, তাহলে ফাল্গুন মাসের কথাটিই বলতে হবে কেবল।
 
বাংলা বছর হিসেবের গণনায় ফাল্গুন বারোটি মাসের মধ্যে একটি মাস। এগারোতম মাস। কিন্তু ফাল্গুন কেবলই একটি মাস, একটি নাম হওয়ার গন্ডিতে সীমাবদ্ধ নয়।
 
১৩৫৮ বঙ্গাব্দের ৮ ফাল্গুন ঘটেছিল মহান ভাষা আন্দোলন। অমর একুশে। আজ পৃথিবী জুড়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে।
 
জহির রায়হান ভাষা আন্দোলনের গল্প নিয়ে লিখে ফেলেছিলেন উপন্যাস ‘আরেক ফাল্গুন।’
 
বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, পৃথিবীর ঋতু বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে ফাল্গুনে দক্ষিণ এশীয় নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের মতো পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে মৃদু বর্ষা হয়। সে কারণে ওসব জায়গার গাছেও নতুন সবুজ জন্মায়।
 
এ সময় হীমাচল প্রদেশসহ কাস্মীর অঞ্চলের তুষারপাত ক্রমে কমে আসে। মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ফিরে আসে। বন্যপ্রাণীদের প্রজননের সময় এটি। নতুন প্রাণের প্রাণের সঞ্চার হয় চারদিকে। তারা সাজায় প্রকৃতিকে। বাঁচায় পরিবেশ।
 
মোগল সম্রাট আকবর প্রথম বাংলা বর্ষ প্রবর্তন করেন ১৫৮৫ সালে। নতুন বছরকে কেন্দ্র করে সেসময় চোদ্দটি উৎসবের আয়োজন করেন তিনি। বসন্ত উৎসব যার অন্যতম। তবে সেসময় ঋতুর নাম ও উৎসবের ধরণ ও আমেজ বেশ ভিন্নরকম ছিল। এখনকার মতো ছিল না মোটেই।
 
পয়লা ফাল্গুন, বসন্ত উৎসব শুধুই উৎসব নয়; এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে বাঙালির গৌরবময় ঐতিহ্য, জাতিসত্তা, বাঙালিসত্তা।
 
 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *