এরাজ্যে কোনও ডিটেনশন ক্যাম্প হবে না: মমতা

রূপসী বাংলা কলকাতা ডেস্ক: তৃণমূল ক্ষমতায় থাকতে এরাজ্যে কোনও ডিটেনশন ক্যাম্প কিছুই হবে না৷ মঙ্গলবার উত্তরকন্যায় প্রশাসনিক বৈঠকে সরকারি অফিসারদের সেই নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

অসমে এআরসি-র চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। তৈরি হয়েছে ডিটেনশন ক্যাম্পও। শুধু অসম নয়, কর্ণাটকেও ডিটেনশন ক্যাম্প তৈরি করা হচ্ছে৷ এদিন প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, কোনওভাবেই যেন ভোটারদের হেনস্থা করা না নয়। পাশাপাশি তিনি ইঙ্গিত দেন, ভোটার তালিকায় জল মেশানোর চেষ্টা চলছে। অনেকসময় ভোটার তালিকায় ডবল এন্ট্রির অভিযোগ সামনে আসছে। দেখা যাচ্ছে, ভোটার একজন। কিন্তু নাম তুলেছেন দু জায়গায়। এই বিষয়ে প্রশাসনিক আধিকারিকদের সতর্ক থাকতে বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সোমবার শিলিগুড়িতে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘‘রাজ্যে কোনও এনআরসি হবে না। কোনও ভাগাভাগি করতে দেব না।’’ তাঁর কথায়, ‘‘আপনারা নিশ্চিন্তে থাকুন। আমরা আপনাদের পাহারাদার।’’

অসমে এনআরসি তালিকা প্রকাশ পাওয়ার পরে কিন্তু ছবিটা কিছুটা হলেও বদলে গিয়েছে। বিভিন্ন সূত্রের দাবি, সেই তালিকা থেকে বাদ পড়া ১৯ লক্ষের মধ্যে বেশির ভাগই হিন্দু। তা ছাড়াও আছেন গোর্খা এবং রাজবংশীরাও। তার পর থেকেই কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, দার্জিলিঙের মতো উত্তরের জেলাগুলিতে এই নিয়ে প্রচারে নেমেছে তৃণমূল। তাদের কথায়, গোর্খা তো বটেই, গোটা উত্তরবঙ্গে রাজবংশীর সংখ্যা নেহাত কম নয়। এই রাজ্যে এনআরসি হলে তাঁরাও বিপদে পড়বেন।

এদিন এনআরসি প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, “এনআরসি নিয়ে ভুয়ো প্রচার চলছে। বাংলায় এনআরসি হবে না।” নাগরিক পঞ্জিকরণের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হওয়ার পর সবচেয়ে বেশি আতঙ্ক ছড়িয়েছে উত্তরবঙ্গে। গতকাল উত্তরবঙ্গ পুলিশ লাইনে বিজয়ার অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে গিয়েও এনআরসি-কেই হাতিয়ার করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। স্পষ্ট জানিয়ে দেন, “এখানে এনআরসি হতে দেব না। আমি আপনাদের পাহারাদার। একটা মানুষকেও বাংলা থেকে যেতে দেব না।”

তিনি আরও বলেন যে, এনআরসি নিয়ে কোচবিহার, আলিপুরদুয়ারে একাংশ রাজবংশীদের ভুল বোঝানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। অসমে রাজবংশীদের নামই সবচেয়ে বেশি বাদ পড়েছে। শুধু এনআরসি নয়, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলও যে তৃণমূল কংগ্রেস কোনওমতে সমর্থন করবে না, তা-ও স্পষ্ট করে দেন তৃণমূল নেত্রী। তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, মানুষের মধ্যে বিভেদ কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *