যুক্তরাষ্ট্র

ওহাইও টেক্সাসে ট্রাম্প ও উইসকনসিনে জো বাইডেন এগিয়ে

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র সাতদিন বাকি। যতই সময় ঘনিয়ে আসছে, নির্বাচনে প্রধান দুই দলের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

জাতীয় নির্বাচনী জরিপ ও সুইং স্টেট তথা ব্যাটল গ্রাউন্ড রাজ্যগুলোর হিসেব-নিকেশ সে কথাই বলছে। নির্বাচনে ১২টি রাজ্যকে জয়-পরাজয় নির্ধারক সুইং স্টেট বা দোদুল্যমান রাজ্য বলা হচ্ছে। এর মধ্যে মাত্র দুটি রাজ্যে এগিয়ে রয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এই রাজ্য দুটি যথাক্রমে ওহাইও ও টেক্সাস। ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট রয়েছে যথাক্রমে ১৮ ও ৩৮টি। ওহাইওতে মাত্র ১ পয়েন্টে আর টেক্সাসে ১.৭ পয়েন্টে এগিয়ে তিনি। বাকি ১০টিতে তার পয়েন্ট কিছুটা বেড়েছে।

তবে এর সবগুলোতেই এখনও স্পষ্ট বড় ব্যবধানে এগিয়ে আছেন প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্রেটিক প্রার্থী জো বাইডেন। নির্বাচনী প্রচারণার শেষ ধাপে ভাগ্য নির্ধারক রাজ্যগুলোকেই টার্গেট করে প্রচারণায় জোর দিয়েছেন উভয় প্রার্থী।

৫০টি স্টেটে একসঙ্গে ভোট হলেও মূলত সবারই নজর থাকে ব্যাটল গ্রাউন্ড খ্যাত কয়েকটি স্টেটের দিকে। এগুলোকে বলা হয় সুইং স্টেট। এসব স্টেটের ভোটার মূলত দুই দলেরই প্রায় সমানেসমান।

অনেক সময় প্রার্থী ও অন্যান্য কারণে এসব স্টেটের ভোটাররা নিজেদের সমর্থন দিয়ে থাকেন। বিশ্লেষকদের কেউ কেউ এবার আটটি রাজ্য নির্বাচনী ফল নির্ধারণে ভূমিকা রাখবে। আবার কেউ ১২টি রাজ্যকে সুইং স্টেট বলছেন।

সুইং স্টেটগুলোর তালিকায় রয়েছে ফ্লোরিডা, পেনসিলভানিয়া, ওহাইও, মিশিগান, উইসকনসিন, আইওয়া, আরিজোনা ও নর্থ ক্যারোলিনা। এছাড়া নেভাদা, জর্জিয়া, মিনেসোটা আর টেক্সাসকে এবার সুইং স্টেট হিসেবে নজরে রাখার কথা বলছে মার্কিন গণমাধ্যম। ৫০ রাজ্যের ৫৩৮টি ইলেক্টোরাল ভোটের মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে দরকার ২৭০টি ভোট। যার অর্ধেকই রয়েছে সুইং স্টেটগুলোতে। রাজ্যগুলোর মধ্যে ১০টিতে সুস্পষ্ট ব্যবধানে এগিয়ে আছেন বাইডেন। দুটিতে তথা ওহাইও ও টেক্সাসে রিপাবলিকান ট্রাম্পের অবস্থান ভালো। ইউএসএ টুডের সর্বশেষ জরিপ মতে, রাজ্যগুলোতে বাইডেনের গড় পয়েন্ট ৫১.৪ শতাংশ। বিপরীতে ট্রাম্পের পয়েন্ট ৪২.৯ শতাংশ। গত সপ্তাহের চেয়ে কিছুটা এগিয়েছেন ট্রাম্প।

গত সপ্তাহে চালানো জপির মতে বাইডেনের পয়েন্ট ছিল ৫১.১ শতাংশ আর ট্রাম্পের ৪২.১ শতাংশ। ১০টি রাজ্যে বড় ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন বাইডেন। সবগুলোর রাজ্যের গড় ব্যবধান প্রায় ৩ পয়েন্ট।

এর মধ্যে পেনসিলভানিয়া, মিশিগান ও উইসকনসিনে ব্যবধান সবচেয়ে বেশি। বিশ্লেষকরা বলছেন, ১০০ বছরে কোনো রিপাবলিকান প্রার্থীর পক্ষে এই ফ্লোরিডায় জয়লাভ ছাড়া প্রেসিডেন্ট হওয়া সম্ভব হয়নি। ২০১৬ সালে ট্রাম্প ১ পয়েন্টের বেশি ব্যবধানে হিলারি ক্লিনটনকে হারিয়েছিলেন। এবারও ফ্লোরিডায় জয় পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী ট্রাম্প।

ইয়াহু নিউজ/ইউগভ’র নতুন এক জরিপে দেখা যাচ্ছে, ট্রাম্প ও বাইডেনের মধ্যে এখন ১২ পয়েন্টের ব্যবধান, যা ২০১৬ সালের নির্বাচনের এই মুহূর্তে ট্রাম্পের চেয়ে হিলারি ক্লিনটনের ‘এগিয়ে থাকার’ চারগুণ বেশি। এদিকে এবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ইতিহাসের সর্বোচ্চ ভোট প্রদানের ঘটনা ঘটতে চলেছে। ইতোমধ্যে ৬ কোটিরও বেশি আমেরিকান আগাম ভোট দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ভোটের ইতিহাসে এটি নজিরবিহীন ঘটনা।

২০১৬ সালের চেয়ে এ সংখ্যা এক কোটি ২০ লাখ বেশি। এমনটাই উঠে এসেছে এনবিসি নিউজ ডিসিশন ডেস্ক/টার্গেট স্মার্টের সমীক্ষায়। তাদের মতে, এবার যুক্তরাষ্ট্রে আগাম ভোটের সংখ্যা ৯ থেকে ১০ কোটিতে পৌঁছাবে। অর্থাৎ ৩ নভেম্বরের আগেই এত সংখ্যক মানুষ আগাম ভোট দিয়ে ফেলবে।

২০১৬ সালের নির্বাচনে আগাম ভোট পড়েছিল পাঁচ কোটি। তবে এনবিসি নিউজ ডিসিশন ডেস্কের অনুমান সত্য হলে এবার এ সংখ্যা হবে তার দ্বিগুণ।❐

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please, Deactivate The Adblock Extension