ওয়াশিংটন ডিসিতে মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা শুরু

আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালনের পাশাপাশি মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা শুরু হয়েছে।
রাষ্ট্রদূত দূতাবাসের কর্মকর্তা এবং কর্মচারিদের সাথে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ মূর্তিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন শুক্রবার একশ’ রঙিন বেলুন উড়িয়ে মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা ঘোষণা করেন।
 
রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন এ সময় বলেন, বঙ্গবন্ধুর মতো এমন কারিশম্যাটিক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বাঙালি জাতি আর কখনও পাবে না।
 
এরপর বঙ্গবন্ধুর প্রত্যাবর্তন দিবস এবং মুজিববর্ষের ক্ষণগণনা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়। দূতাবাসের ডিফেন্স এ্যাটাসে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এম মইনুল হাসান, মিনিস্টার (ইকোনমিক) মো. মেহেদী হাসান, মিনিস্টার (প্রেস) শামিম আহমদ এবং মিনিস্টার (কনস্যুলার) মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান পৃথকভাবে এসব বাণী পাঠ করেন।
 
এছাড়া মুজিববর্ষের ক্ষণগণনার উপর একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।
 
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
 
রাষ্ট্রদূত বলেন, ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু তাঁর ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্য দিয়ে সমগ্র বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন করে দিয়ে গেছেন। আর তাঁরই (বঙ্গবন্ধুর) কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলস পরিশ্রমের মাধ্যমে তাঁর পিতার দর্শন সোনার বাংলা গড়ার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করে যাচ্ছেন।
 
রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন বাঙালি জাতির জন্য একটি তাৎপর্যপূর্ণ উদ্যোগ। মুজিববর্ষ উদযাপন দেশের নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শ এবং আত্মত্যাগ সম্পর্কে জানতে আরও উৎসাহিত করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *