অর্থনীতিযুক্তরাষ্ট্র

করোনার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে ৩ কোটি ৩৩ লক্ষ মানুষ বেকার

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা মহামারীতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও প্রাণহানি ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে মানুষের জীবনযাপন। লকডাউনের কারণে বন্ধ হয়ে গেছে কাজকর্ম, ব্যবসাবাণিজ্য। এতে দেশটিতে এখন বেকার হয়ে পড়েছেন প্রায় সাড়ে ৩ কোটি মানুষ।

বিবিসি জানায়, কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গত এক সপ্তাহেই বেকার সুবিধার আবেদন পড়েছে ৩২ লাখ। আবেদনকারীদের বেশির ভাগই নারী। 

যুক্তরাষ্ট্রের শ্রম মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মার্চের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত দেশে বেকার ছিলেন ৬৯ লাখ মানুষ। করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পরই অর্থাৎ গত ছয় সপ্তাহে বেকার হয়েছেন ৩ কোটিরও বেশি। সব মিলিয়ে এখন বেকার সুবিধা পাওয়ার আবেদন দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ৩৩ লক্ষ।

মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বেকার হওয়া এই অংশটি দেশের মোট শ্রমশক্তির ২০ শতাংশ। প্রতি সপ্তাহেই বাড়ছে এ সংখ্যা। যুক্তরাষ্ট্রের কিছু অংশে লকডাউন শিথিল করার পরও এত বেকার ভাতার আবেদনের অর্থ হলো তারা চাকরি হারিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটাল ইকনোমিকের প্রধান অর্থনীতিবিদ পল অ্যাসওয়ার্থ বলেন, দেশটির কিছু অংশ চালু হতে শুরু করলেও সুবিধা ভোগীর সংখ্যা বাড়ছেই। এর মানে খুব কম সংখ্যক মানুষই কাজে ফিরছে। এতে হতাশাও বাড়বে।

লাস ভেগাসের নেভাডায় ওয়ান-স্টপ ক্যারিয়ার সেন্টারে বেকারত্ব সুবিধা পেতে সাইন আপের জন্যে লাইনে দাঁড়িয়ে স্থানীয়রা। – দ্য গার্ডিয়ান।

ভ্রমণ বন্ধ থাকায় উবার, লিফট ও এয়ার বিএনবির মতো প্রতিষ্ঠানগুলো কয়েক সপ্তাহ আগে থেকেই কর্মী ছাঁটাই করছে। মেডিকেল, রেস্তোরাঁ ও প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় এর প্রভাব পড়েছে অর্থনীতিতে।

অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, এপ্রিলের তুলনায় বেকারত্ব ১৫ শতাংশ বা এর চেয়ে বেশি বাড়তে পারে। দুই মাস আগে বেকারত্বের হার ছিল ৩.৫ শতাংশ; যা গত ৫০ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন।

২০০৮ সালে বৈশ্বিক মন্দার সময় যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতেও সংকট তৈরি হয়েছিল। এখন করোনা আঘাত হানার পর তার চেয়েও চেয়ে বাজে অবস্থা বিরাজ করছে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে।

এদিকে দ্য ন্যাশনাল মাল্টিফ্যামিলি হাউজিং কাউন্সিল জানিয়েছে, বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়া পরিষেবা বিল পরিশোধে বিলম্ব করছে। এক-তৃতীয়াংশ মানুষও গত মাসে পুরো বিল পরিশোধ করে নি।

প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সমাজ বিজ্ঞানী ম্যাথিউ ডেসমন্ড বলেন, এভাবে চলতে থাকলে স্বাস্থ্য সমস্যা গৃহহীন সমস্যায় পরিণত হবে। তবে অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, ব্যবসা বাণিজ্য শুরু হলে ধীরে ধীরে অর্থ সংকট কেটে যাবে।

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১৩ লক্ষ ৬৭ হাজার ৬শ’রও বেশী মানুষ আর প্রাণ হারিয়েছেন ৮০ হাজার ৭৮৭ জন।◉

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please, Deactivate The Adblock Extension