আন্তর্জাতিককরোনা

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে আরেকটি বড় ধরনের প্রাদুর্ভাব বা করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সন্নিকটে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। ইউরোপের কয়েকটি দেশ, কানাডা, পেরু, এশিয়ার কিছু অঞ্চলে করোনাভাইরাস আরও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় সেসব এলাকার কর্র্তৃপক্ষ কড়া পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে।

ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার দ্রুত বেড়ে চলেছে। শরৎ ও শীতকালে সেই সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। গ্রীষ্মে মানুষ খোলা আকাশের নিচে বেশি সময় কাটানোর পর তাপমাত্রা কমতে শুরু করলে, বদ্ধ ঘরে জমায়েত বাড়বে। তখন সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে পড়বে বলে বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন। সার্বিক লকডাউন ছাড়াই ওই পরিস্থিতি সামলানো ইউরোপের বিভিন্ন দেশের কাছে চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণস্বাস্থ্যবিষয়ক অধ্যাপক ও বিজ্ঞানী লিন্ডা বাউল্ড বলেন, ভাইরাসটি ইউরোপ থেকে পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব হয় নি, এটাকে দমিয়ে রাখা হয়েছিল। তাই যখন লকডাউন তুলে নেওয়া হলো, আবারও ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়েছে। সরকারগুলো বলছে, ঘর থেকে বাইরে আসুন, অর্থনীতিতে অবদান রাখুন, প্রিয়জনের সঙ্গে দেখা করুন।

ইউরোপে নতুন করে সংক্রমণের মাত্রা অতিক্রম করেছে ৬ দেশে। এ তালিকার শীর্ষে রয়েছে স্পেন। এ ছাড়া ফ্রান্সের দক্ষিণের কিছু অংশ, চেক প্রজাতন্ত্র, ক্রোয়েশিয়া ও রোমানিয়ায়ও সংক্রমণের হার দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদ ও সংলগ্ন অঞ্চলে করোনা মহামারী মারাত্মক আকার ধারণ করছে। পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় সরকারের মধ্যে সংঘাতের ফলে সমস্যা আরও বাড়ছে।

যুক্তরাজ্যে করোনা পরিস্থিতির অবনতিও অব্যাহত রয়েছে। শীতের মাসগুলোতে সে দেশে সংক্রমণের হার মারাত্মক আকার ধারণ করবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও তার মন্ত্রীরা পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকারের পদক্ষেপ ঠিক করতে গত সপ্তাহান্তে মিলিত হয়েছিলেন। সংক্রমণের গতি কমাতে সরকার সাময়িক বিধিনিয়ম ঘোষণা করবে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

জার্মানির কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারগুলোও শীতের মাসগুলোতে করোনা সংক্রমণের হার নিয়ন্ত্রণে রাখতে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে। জার্মানির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েন্স স্পান বলেছেন, প্রতিবেশী দেশগুলোতে করোনার সংক্রমণ বাড়ার ফলে জার্মানিতেও এর প্রভাব দেখা যাবে বলে তার আশঙ্কা।

রাশিয়ায় আবারও বাড়তে শুরু করেছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। আগের ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছেন সাড়ে ছয় হাজারের বেশি, যা গত দুই মাসের মধ্যে এক দিনে সর্বোচ্চ সংক্রমণের রেকর্ড।

রুশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, দেশটিতে সামাজিক দূরত্বের নির্দেশনা এখনো রয়েছে। বাইরে বেরোলে মানুষজনের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। এদিকে কানাডায় শুরু হয়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। বুধবার সন্ধ্যায় কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো তার ওয়স্ট ব্লক অফিস থেকে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা একটি পতনের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি, যা বসন্তের চেয়ে আরও খারাপ হতে পারে। সংক্রমণের হার জাতীয় পর্যায়ে বেড়েছে।

তিনি বলেন, কানাডিয়ানরা সামাজিক অনুষ্ঠানের জন্য জমায়েত হবে না। দ্বিতীয় সংক্রমণকে নিয়ন্ত্রণে আনার ক্ষমতা আমাদের রয়েছে। জনসাধারণকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে।❐

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please, Deactivate The Adblock Extension