জেসী’স কিচেন

জেসমিন রাশিদ জেসী

 

 

 

রূপসী বাংলা ডেস্ক:  আজ আপনাদের জন‌্য এনেছি মজাদার তিন’টি রেসিপি যাতে ঘরে বসেই সহজ উপায়ে অল্প খরচে এবং অল্প সময়ে ভেজাল মুক্ত দই ও মিষ্টি বানাতে পারেন –

 

 

 

মিষ্টি দই:-

উপকরণ: লিকুইড দুধ – ১ লিটার, চিনি – ১/২ কাপ, দই বীজ (আগের দই) – ১/২ কাপ।

প্রণালি: দুধ ৫ – ৭ মিনিট জ্বাল দিয়ে চিনি মেশাতে হবে। অন্য পাত্রে ২ টেবিল চামচ চিনি ও ১ চা চামচ পানি জ্বাল দিয়ে ক্যারামেল বানিয়ে ১/২ কাপ জ্বাল দেয়া গরম দুধ মেশাতে হবে (এটি দই এর সুন্দর রং আনবে)। চুলায় জ্বাল দেয়া দুধের সাথে এই ক্যারামেল মেশানো দুধ ভালো ভাবে মিশিয়ে নামিয়ে রাখতে হবে। আরেকটি পাত্রে পানি ঝড়ানো বীজ দই নিয়ে ভালো ভাবে ফেটে নিতে হবে। দুধ যখন কুসুম গরম অবস্থায় আসবে তখন হ্যান্ড হুইস্ক দিয়ে অল্প অল্প করে বীজ দই এর সাথে মেশাতে হবে। দই পাতার পাত্রে ঢেলে গরম কোনো জায়গায় যেমন চুলার নীচে ৩ – ৪ ঘণ্টা রাখতে হবে। সময় কম বা বেশি লাগতে পারে। তাড়াতাড়ি বানাতে চাইলে চুলায় হাঁড়ি বসিয়ে তার মধ্যে একটা স্ট্যান্ড দিয়ে স্ট্যান্ডের উপর দই এর পাত্র ঢেকে বসাতে হবে এবং হাঁড়িটাও ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। চুলার আঁচ কমিয়ে রাখতে হবে। এই ভাবে এক থেকে দেড় ঘণ্টার মধ্যে দই বসে যাবে।

 

গাজরের লাড্ডু:-

উপকরণ: গাজর – ৫০০ গ্রাম, চিনি – ১/২ কাপ, লিকুইড দুধ – ২ কাপ, ঘি – ৩ টেবিল চামচ, গুঁড়া দুধ – ১/৪ কাপ, এলাচ গুঁড়া – ১ /৪ চা চামচ, বাদাম কুচি – ১ ১/২ টেবিল চামচ, লবণ – ১ চিমটি ।

প্রণালি: প্যান চুলায় বসিয়ে এতে লিকুইড দুধ ও গাজর দিয়ে মাঝারি আঁচে বসাতে হবে। ঘন ঘন নাড়তে হবে। দুধ যখন প্রায় শুকিয়ে আসবে তখন চিনি দিতে হবে। যখন চিনির পানি শুকিয়ে গাজর সেদ্ধ হয়ে যাবে তখন ঘি দিয়ে নেড়ে বাদাম কুচি মেশাতে হবে। পরে গুঁড়া দুধ ও এলাচ গুঁড়া ভালো মত মিশিয়ে নামিয়ে রাখতে হবে। হালকা গরম থাকতেই অল্প অল্প করে হালুয়া হাতে নিয়ে গোল করে লাড্ডু বানিয়ে শুকনো মাওয়ায় গড়িয়ে নিতে হবে।

 

কালোজাম:-

উপকরণ: ছানা – ১ কাপ, ময়দা – ১ /৪ কাপ, গুঁড়া দুধ – ৪ টেবিল চামচ, ঘি – ১ টেবিল চামচ, বেকিং পাউডার – ১ /৪ চা চামচ, ফুড কালার (ইচ্ছা) – সামান্য, চিনি – ১ টেবিল চামচ ।

সিরার জন্য: চিনি – ১ ১/২ কাপ, পানি – ৩ কাপ, এলাচ – ৩ টা ।জ্বাল দিয়ে পাতলা সিরা করতে হবে।

ছানা তৈরি: এক লিটার দুধ চুলায় বসানোর পর যখন ফুটে উঠবে তখন এতে ১ টেবিল চামচ লেবুর রস আধা কাপ পানির সাথে মিশিয়ে দিতে হবে। হালকা ভাবে নাড়তে হবে। কিছুক্ষণ পর দেখা যাবে ছানা আর পানি আলাদা হয়ে গেছে। পরিষ্কার পাতলা কাপড়ে ছানা ছেকে পানি দিয়ে একটু ধুয়ে ছানা সহ কাপড়টা ঝুলিয়ে রাখতে হবে ১ ঘণ্টা। খেয়াল রাখতে হবে ছানা যেন বেশি শুকনো না হয়ে যায়। বেশি শুকনো হলে মিষ্টি ভেঙ্গে যাবে।

প্রণালি: শুকনো উপকরণ গুলো এক সাথে মিশিয়ে রাখতে হবে। ছানা ভালো ভাবে ময়ান দিয়ে ঘি ও শুকনো উপকরণের সাথে হাত দিয়ে ভালো ভাবে মথে নরম একটা কাই এর মত করে নিতে হবে। পরে ফুড কালার মিশিয়ে ১০ – ১২ টা ভাগ করে চমচমের আকার দিতে হবে। প্যানে তেল হালকা গরম হলে একটা একটা করে মিষ্টি ছেড়ে আস্তে আস্তে অল্প আঁচে কালচে করে ভাজতে হবে। বেশি নাড়া যাবে না। হালকা ভাবে উল্টে দিতে হবে। অন্য চুলায় সিরা জ্বালে থাকবে। মিষ্টি ভাজা হয়ে গেলে তেল থেকে তুলে ফুটন্ত সিরায় ছাড়তে হবে। সব মিষ্টি সিরায় দেয়ার পর চুলা বেশি আঁচে ৫ মিনিট ঢেকে জ্বাল দিতে হবে। ৫ মিনিট পর চুলা বন্ধ করে ১০ মিনিট ঢেকে রাখতে হবে। ১০ – ১৫ মিনিট পর ঢাকনা খুলে রাখতে হবে ঠাণ্ডা হওয়া পর্যন্ত। পরে সিরা থেকে তুলে মাওয়ায় গড়িয়ে নিলেই হয়ে গেল মজার কালোজাম।

 

***মজাদার সব খাবার পেতে ভিজিট করুন***

https://foodpeon.com/kitchen/4018

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *