মেক্সিকোকে হারিয়ে ফের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল

রূপসী বাংলা কলকাতা ডেস্ক: ঘরের মাঠে ফুটবলে ফের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। মেক্সিকোকে ২-১ গোলে হারিয়ে অনুর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ খেতাব জিতে নিল সেলেকাওরা। এই নিয়ে চতুর্থবার খেতাব ঘরে তুলল লাতিন আমেরিকার দেশটি। সেমিফাইনালের পর ফাইনালেও পিছিয়ে পড়ে দুরন্ত কামব্যাক করল গুইলহের্মে ডালা দিয়ার ছেলেরা। টুর্নামেন্টে সর্বাধিক খেতাব জয়ের নিরিখে সামনে এখন শুধুই নাইজিরিয়া (৫)।

দিনতিনেক আগে সেমিফাইনালের লড়াইয়ে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে দুরন্ত প্রত্যাবর্তন করেছিল ইয়েলো ব্রিগেড। ২ গোলে পিছিয়ে পড়েও পালটা ৩ গোল দিয়ে ফাইনালের ছাড়পত্র আদায় করেছিল তারা। ফাইনালেও দুই লাতিন আম্রিকার দ্বৈরথে শেষ দশ মিনিটে জোড়া গোল করে বাজিমাৎ করল সিনিয়র ফুটবলে পাঁচবারের বিশ্বজয়ীরা।

যদিও মেগা ফাইনালে প্রাথমিকভাবে গোলের সুযোগ পেয়েছিল সেলেকাওরাই। কিন্তু খেলার গতির কিছুটা বিরুদ্ধে গিয়েই দ্বিতীয়ার্ধে ম্যাচে লিড নেয় মেক্সিকো। বামপ্রান্তিক ক্রস থেকে ব্রাজিলের দুই ডিফেন্ডারের মাঝখান দিয়ে দুরন্ত হেডারে বল তিনকাঠিতে রাখেন ব্রায়ান গঞ্জালেস। ম্যাচ যখন অনেকটাই ঢলে পড়েছে মেক্সিকোর অনুকূলে ঠিক তখনই পটপরিবর্তন। ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির সাহায্য নিয়ে ব্রাজিলকে পেনাল্টি প্রদান করেন রেফারি। স্পটকিক থেকে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান স্ট্রাইকার কাইয়ো জর্জ।

এরপর অতিরিক্ত সময়ে একটি ক্রস বল ধাওয়া করে ঠান্ডা মাথায় জয়সূচক গোল করেন সুপার-সাব ল্যাজারো। শেষ চারে ফ্রান্সের বিপক্ষেও এমনই পরিবর্ত হিসেবে গোল করে দলকে ফাইনালের টিকিট ধরিয়ে দিয়েছিলেন ফ্ল্যামেঙ্গো স্ট্রাইকার। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটিয়েই এদিন ঘরের মাঠের অনুরাগীদের আনন্দে উদ্বেলিত করে তোলেন ল্যাজারো। ম্যাচ হেরে ভিএআরের সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্ষোভ উগড়ে দেন মেক্সিকো কোচ। তিনি বলেন, ‘ভিএআরের সিদ্ধান্ত ব্রাজিলের পক্ষে যাওয়ার আগে অবধি ম্যাচ আমাদের হাতে ছিল। কিন্তু ভিএআরের সিদ্ধান্ত পক্ষে যাওয়ার পরেই ম্যাচ ধরে নিল ওরা।’

উল্লেখ্য এই জয়ের ফলে ২০০৫ অনুর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ফাইনালে মেক্সিকোর কাছে ০-৩ গোলে হারের মধুর বদল নিল সেলেকাওরা। অন্য ম্যাচে নেদারল্যান্ডকে ৩-১ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপে তৃতীয় স্থান দখল করল ফ্রান্স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *