“লক্ষীপুর ডিষ্ট্রিক্ট এসোসিয়েশন ইউএসএ ইন্ক”- বনভোজন অনুষ্ঠিত

রূপসী বাংলা প্রবাস ডেস্ক:গত ৬ জুলাই শনিবার নিউইয়র্কের অদূরে প্রকৃতির নৈশর্গিক সৌন্দর্যে মোড়া পাহাড় আর ফুলে আচ্ছাদিত প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে আবর্তিত লংআইল্যান্ডের হেকশেয়ার স্টেট পার্কে “লক্ষীপুর ডিষ্ট্রিক্ট এসোসিয়েশন ইউএসএ ইন্ক”- এর উদ্যোগে দিনব্যাপি আয়োজন করা হয় বার্ষিক বনভোজনের। সকাল ৮ টায় নিউইয়র্কের জ্যাক্সন হাইট্স, জ্যামাইকা, ব্রুকলীন ও ব্রঙ্কস থেকে ৪টি বাসযোগে এবং শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রায় শতাধিক প্রাইভেট কারযোগে সংগঠনের সদস্য/সদস্যাদের পরিবারবর্গ এবং আমন্ত্রিত অতিথিগণ বনভোজনের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করেন। যাত্রার শুরুতে সকলের মধ্যে সকালের নাস্তা পরিবেশন করা হয়। সকাল ১১টায় সকলে বনভোজনের নির্ধারিত স্থান ৩ নং প্যাভেলিয়নে পৌঁছালে সেখানে এক আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। এসময় বনভোজন কমিটির আহবায়ক সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফিরোজ মাহমুদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কবির আলীর পরিচালনায় পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এবং বাংলাদেশ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন শেষে বেলুন উড়িয়ে “বনভোজন ২০১৯” এর শুভ উদ্বোধন করেন যৌথভাবে যথাক্রমে সংগঠনের প্রাক্তন সভাপতি তছলিম উদ্দিন খান এবং সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অলিউর রহমান।


উদ্বোধনী পর্বে কার্যকরী কমিটির সদস্যবৃন্দ, বনভোজন কমিটির সদস্যবৃন্দ, সংগঠনের সকল আজীন সদস্য/সদস্যা সহ সাধারণ সদস্য/সদস্যা এবং আগত অতিথিবর্গ করতালির মাধ্যমে উদ্বোধণী অনুষ্ঠানকে উপভোগ্য করে তোলেন। সংগঠনের এমন অভূতপূর্ব রঙিন আয়োজন দেখে অভিভূত উপস্থিত অনেকেই বলেন, ‘মনে হচ্ছে আমরা নিজ জেলা লক্ষীপুরেই আছি’। যান্ত্রিক ও কায়িক পরিশ্রমের এই শহরে দির্ঘদিন পর একে অপরকে দেখে আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন। কেউ কেউ মেতে উঠেন সুখ-দুঃখের স্মৃতি রোমন্থনের আলাপনে। কেউ-কেউ এদিক সেদিক ঘুরে ফিরে পার্কের সৌন্দর্য উপভোগ করেন। শিশু কিশোরদের বাঁধভাঙ্গা উচ্ছাস ছিল চোখে পড়ার মত।


বনভোজনে অংশগ্রহনকারী বয়স্করা বয়সের সীমাবদ্ধতা ভূলে প্রাণের উচ্ছাসে মেতে উঠেন। সর্বস্তরের প্রবাসীদের উপস্থিতিতে বনভোজন স্থল পরিনত হয়েছিল যেন একখন্ড বাংলাদেশ। এরই মাঝে প্রচন্ড গরমে মক্কা ট্রাভেলস-এর স্বত্তাধিকারী তছলিম উদ্দিনের সৌজন্যে একখন্ড ঠান্ডা তরমুজ দিয়ে সকলের প্রানে ঠান্ডার আবহ প্রবাহিত করেন সমিতির অন্যতম সদস্য শাহেদ চৌধুরী, মোঃ আলমগীর, সামিউল ইসলাম, মাজহারুল ইসলাম আজিম, মোঃ রহমান, মেহেদী হোসেন ভূঁইয়া, ফখরুল ইসলাম বাবুল, মোঃ জহিরুল হক সহ আয়োজকবৃন্দ। শিশু-কিশোরদের খেলাধূলার মাঝে বিভিন্ন ধরনের আনন্দ উপভোগ করতে করতে মধ্যাহ্ন ভোজের সময় হয়ে যায়। এরই মাঝে সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলমগীর মোল্লার ব্যবস্থাপনায় জামাতের সাথে যোহরের নামাজ আদায় করেন অনেকেই।

দুপুর গড়াতেই জ্যাকসন হাইটস-এর স্বনামধন্য তিতাস রেষ্টুরেন্টের সু-স্বাধু খাবার দ্বারা উপস্থিত সকলকে তৃপ্তিভরে আপ্যায়িত করা হয়। তিতাসের পরিবেশিত হরেক রকমের মুখরোচক খাবার খেয়ে সকলেই তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে থাকে, এরমধ্যে ছিল রঙ-বেরঙের মিষ্টি পানের সমাহার। দুপুরের খাবার পরিবেশনের দায়িত্বে ছিলেন সংগঠনের সৃষ্ট পিকনিক পরিচালনা স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর সদস্যবৃন্দ যথাক্রমে- গিয়াস উদ্দিন রুবেল বাট, মোঃ বেল্লাল উদ্দিন, মোঃ আমিন মোর্শেদ, মোঃ আমিন, মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ খোরশেদ আলম, আঃ রহিম, মান্নান খান, ইসমাইল হোসেন সুমন, নোমান খান, হুমায়ুন, শাহালম, মাহমুদুর রহমান তানিম, রুবেল পারভেজ, ইকবাল হোসেন, সাইফুল ইসলাম টিপু, মোঃ রাজু, জুয়েল, জাকির, নেহাল হোসেন, মোঃ মাহবুবুর রহমান, মোঃ সোলায়মান, মোঃ তাজুল ইসলাম, মোঃ মাসুম, ওমর ফারুক বাপ্পি প্রমুখের সমন্বয়ে।


বনভোজনের বিশেষ আকর্ষন শিশু-কিশোর, বালক-বালিকা এবং পুরুষ ও মহিলাদের আকর্ষনীয় খেলাধূলা পর্ব। এপর্বে উপস্থিত সকলেই প্রানখুলে বিভিন্ন ইভেন্টের খেলাধূলায় অংশগ্রহন করেন। খেলাধূলা পরিচালনায় ছিলেন সমিতির ক্রিড়া সম্পাদক আব্দুর রহিম- তাকে সহযোগিতা করেন আমির হোসেন বাবু, আলহাজ্ব সাহাব উদ্দিন, তছলিম উদ্দিন খান, আবুল হোসেন, মোঃ আলী, ফারহানা ইয়াসমীন প্রমুখ, ক্রিড়া ক্ষেত্রে বিচারক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন জয়নাল আবেদীন, মাকসুদুর রহমান, অলিউর রহমান, আবুল হাসেম, মোস্তাফিজুর রহমান, মোঃ নুর নবী, হুমায়ন কবির লিটন প্রমুখ।
বিকালে সংগঠনের পরিবেশনে উপস্থিত সকলকে ঝালমুড়ি ও চা এর মাধ্যমে আপ্যায়িত করা হয়। এর মাঝে উল্লেখ্য যে দিনব্যাপী সকলের মাঝে ঠান্ডা পানী, সোডা, বাচ্চাদের জন্য চিপ্স ও জুস বিতরণ ছিল বিরতীহীনভাবে। ওয়াসী চৌধুরীর সৌজন্যে আগত সকল বাচ্চাকে সুন্দর-সুন্দর খেলনা দিয়ে উৎসাহিত করা হয়।


অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে ছিল খেলাধূলায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ ও আলোচনাপর্ব। আলোচনা পর্বে সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফিরোজ মাহমুদ, যৌথভাবে পরিচালনা করেন যথাক্রমে সাধারণ সম্পাদক কবির আলী, প্রচার সম্পাদক আনোয়ার হোসেন ও ক্রিড়া সম্পাদক আব্দুর রহিম- আলোচনায় অংশ নেন ডেমোক্রেট লিডার মাফ মেজবাহউদ্দিন, এটর্নী মঈন চৌধুরী, বাংলাদেশ সোসাইটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক যথাক্রমে ফখরুল ইসলাম ও জয়নাল আবেদীন, জেবিবিএর প্রাক্তন সভাপতি পিয়ার আহম্মেদ, গ্রেটার নোয়াখালী সমিতির প্রাক্তন সভাপতি আব্দুর রব ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক জাহিদ মিন্টু এবং সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাকসুদুর রহমান, প্রাক্তন সভাপতি তছলিম উদ্দিন খান, আজীবন সদস্য সাইফুল ইসলাম আলম প্রমুখ।


জয়নাল আবেদীন ও মোর্শেদ আমিনূল হকের সৌজন্যে দিনব্যাপি সাংস্কৃতিক প্রোগ্রামে অংশগ্রহন করেন-প্রবাসের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী সজিব সহ স্থানীয় শিল্পীবৃন্দ।
অনুষ্ঠানের সর্বশেষ পর্ব ছিল আকর্ষনীয় র‌্যাফেল ড্র- পুরস্কার বিতরণী শেষে সভাপতি বনভোজন-এ অংশগ্রহনের জন্য সকলকে অভিনন্দন জানান, সাথে সাথে তিনি সকল স্পন্সর এবং আর্থিক ও কায়িক পরিশ্রমের মাধ্যমে যারা বনভোজনকে স্বার্থক করে তুলেছেন তাঁদেরকে শুভেচ্ছা জানান। সবশেষে এবারের পিকনিকের স্পন্সর জনাব জামিল উদ্দিন পাটোয়ারী-গ্রীন ম্যানর ইউএসএ, তছলিম কনষ্ট্রাকসন, এম আলী কনষ্ট্রাকশন, জাহিদ মিন্টু, জাকির এইচ চৌধুরী, এটর্নী মঈন চৌধুরী, মহিউদ্দিন দেওয়ান, প্রটেক্ট ওয়াল্ড, ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজুল হক, মোঃ আলম আহমেদ, আলাসকা রেষ্টুরেন্ট ব্রঙ্কস, রাজু রেষ্টুরেন্ট ইকুইপমেন্ট এন্ড সাপ্লাইস, ডিজিটাল গ্রাফিক্স, তাহমিনা আক্তার প্রমুখের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *