লোকসভা ভোটে তারকা ক্রীড়াবিদদের ফলাফল

রূপসী বাংলা স্পোর্টস ডেস্ক : রাজনীতির আঙিনায় ক্রীড়াবিদদের বিচরণ নতুন কিছু নয়৷ বিশ্বজোড়া এমন উদাহরণ রয়েছে বিস্তর৷ বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেট অধিনায়ক ইমরান খানের খেলা ছাড়ার পর রাজনীতিতে আসা এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পদে আসীন হওয়ার নজির এখন কার্যত লোকগাথা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷

আর্নল্ড সোয়ারজেনেগার, মানি পাকিয়াও, জর্জ ওয়ে, গ্যারি কাসপারভ প্রমুখের সক্রিয় রাজনীতিতে আসা এবং গভর্নর স্থানীয় গুরুত্বপূর্ণ পদে বসার নজির রয়েছে ক্রীড়াবিশ্বের সামনে৷ ভারতেও খেলার জগৎ থেকে সংসদীয় রাজনীতিতে আসার উদাহরণ রয়েছে প্রচুর৷

ক্রিকেটার নভজ্যোৎ সিং সিধু ও মহম্মদ আজহারউদ্দিন এথনও সক্রিয় রাজনীতিতে থাকলেও ২০১৯ লোকসভা ভোটের টিকিট জোটেনি তাদের ভাগ্যে৷ যে পাঁচজন বর্তমান ও প্রাক্তন ক্রীড়াবিদ এবার সাধারণ নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন, একনজরে দেখে নেওয়া যাক জনতা জনার্দন তাঁদের কী ভাগ্য নির্ধারণ করেছে৷

গৌতম গম্ভীর: জোড়া বিশ্বকাপজয়ী (২০০৭ টি-২০ ও ২০১১ ওয়ান ডে) ভারতীয় ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর গত মার্চ মাসে বিজেপির হাত ধরে সক্রিয় রাজনীতিতে নতুন ইনিংস শুরু করেন৷ গত বছর ডিসেম্বরে ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়া তারকা ক্রিকেটার এবার পূর্ব দিল্লি লোকসভা কেন্দ্র থেকে বিজেপির হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন৷ ৫৫.৩ শতাংশ ভোট পেয়ে তিনি পরাজিত করেছেন নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেসের অরবিন্দর সিং লভলিকে৷

বিজেন্দ্র সিং: অলিম্পিকের ব্রোঞ্জ পদকজয়ী বক্সার এবার দক্ষিণ দিল্লি লোকসভা কেন্দ্র থেকে জাতীয় কংগ্রেসের টিকিটে লড়াইয়ে নেমেছিলেন৷ মাত্র ১৫.২ শতাংশ ভোট পেয়ে তিনি বিজেপির রমেশ বিধুরি ও আম আদমি পার্টির রাঘব চাধার পিছনে তৃতীয় স্থানে থেকে লড়াই শেষ করেছেন৷

রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোর: অলিম্পিকে রুপোজয়ী শুটার বিজেপির টিকিটে ২০১৪ লোকসভা ভোটে জিতে দেশের ক্রীড়ামন্ত্রী হয়েছিলেন৷ এবারও বিজেপির টিকিটেই জয়পুর গ্রামীন লোকসভা কেন্দ্র থেকে ভোটে দাঁড়িয়ে জয়লাভ করেছেন৷ সব মিলিয়ে ৬৩.৮৩ শতাংশ ভোট পেয়েছেন তিনি৷

কৃষ্ণা পুনিয়া: দিল্লি কমনওয়েলথ গেমসের সোনাজয়ী ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড অ্যাথলিট কৃষ্ণা পুনিয়া এবার কংগ্রেসের টিকিটে রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোরের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন৷ ৩৩.৮ শতাংশ ভোট পেয়ে রাঠোরের কাছে হার মানতে হয় তাঁকে৷

কীর্তি আজাদ: ৮৩’র বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় ক্রিকেট দলের সদস্য কীর্তি আজাদ ২০১৪ লোকসভা ভোটে লড়েছিলেন বিজেপির হয়ে৷ জিতেওছিলেন৷ এবার কংগ্রেসেহ টিকিটে ধানবাদ লোকসভা কেন্দ্র থেকে লড়াইয়ে নেমেছিলেন তিনি৷ তবে বিজেপির পশুপতি নাথ সিংয়ের কাছে হার মানতে হয় তাঁকে৷ আজাদ ৩১.২ শতাংশ ভোট পেয়েছেন এবার৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *