বাংলাদেশের পথেমুক্তিযুদ্ধস্বাধীনতা

স্বাধীনতার পথে- ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৭১

১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৭১

জাতিসংঘে নিযুক্ত পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত আগা শাহী নিরাপত্তা পরিষদের প্রেসিডেন্টের কাছে চিঠি পাঠিয়ে দুইজন কাশ্মিরি কর্তৃক ভারতীয় বিমান হাইজ্যাকের পর ভারতের ওপর দিয়ে পাকিস্তানি বিমান চলাচল নিষিদ্ধ এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও সরকার কর্তৃক হুমকিমূলক বক্তৃতা ও বিবৃতিতে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে যে গুরুতর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে সেদিকে দৃষ্টি দেওয়ার অনুরোধ করেন।

দেশের সাধারণ নির্বাচনের পর ঢাকায় প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগ ও পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সভায় শাসনতান্ত্রিক প্রশ্নে আলোচনা এবং দলের ৬ দফা কর্মসূচির ভিত্তিতে শাসনতন্ত্র প্রণয়নে দলীয় ভূমিকার কথা পুনরুল্লেখ করা হয়।

এককভাবে কোনও রাজনৈতিক দল শাসনতন্ত্র প্রণয়নে সক্ষম হলেও কায়েমী স্বার্থবাদীদের আক্রমণ থেকে শাসনতন্ত্র রক্ষা করার মত শক্তি এককভাবে কোনও রাজনৈতিক দলের নেই। ঢাকায় এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে নির্যাতিত বেলুচ নেতা নওয়াব আকবর খান বুগতি উপরোক্ত মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তান এবং অন্য সকল প্রদেশের জন্যই ৬ দফা ও ১১ দফা ভিত্তিক স্বায়ত্তশাসন প্রদানে অঙ্গীকারাবদ্ধ। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল। শাসনতন্ত্র প্রণয়নের ক্ষমতা তার রয়েছে।

স্বাধীনতার পর দীর্ঘ ২৩ বছর বাঙালি তাদের ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতির স্বাধীনতা ভোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছে, যার জন্য আজ বাংলাভাষা আর সংস্কৃতির বাস্তবিক অর্থে কোনও উন্নতি হয় নি। রমনা উদ্যানে ২১ ফেব্রুয়ারি স্মরণে বাংলা ছাত্র লীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে ড. কাজী মোতাহার হোসেন উল্লিখিত কথাগুলো বলেন।

পূর্ব পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আলতাফ হোসেন এক যৌথ বিবৃতিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান একুশে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস পালনের আহবান জানান। বিবৃতিতে তারা বলেন, ভাষা আন্দোলন ছিল পূর্ব বাংলার জনগণের জাতীয় বিকাশের আকাঙ্ক্ষারই অভিব্যক্তি। গণতন্ত্র ও জাতীয় অধিকার আদায়ের প্রশ্নে এই দিবসটি তাই এত গুরুত্বপূর্ণ।

ঢাকার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদে আওয়ামী লীগ পার্লামেন্টারি পার্টির সদস্যদের যৌথ অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান ওয়ার্কিং কমিটির সভায় ৬ দফা ও ১১ দফা এবং দলীয় মেনিফেস্টোর ভিত্তিতে শাসনতন্ত্র রচনা, দেশের রাজনৈতিক ও ক্রমাবনতিশীল অর্থনৈতিক পরিস্থিতি এবং ভারতীয় বিমান হাইজ্যাকিংয়ের পর উদ্ভুত পরিস্থিতির আলোকে গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ দান করবেন।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close

Adblock Detected

Please, Deactivate The Adblock Extension