স্বাধীনতার পথে- ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৭১

২৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৭১

আওয়ামী লীগ দফতরে আহুত এক জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলনে আওয়ামী লীগ প্রধান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ষড়যন্ত্রকারীদের প্রতিহত করার সংগ্রামের জন্য পাকিস্তানের নির্যাতিত জনগণ এবং বাংলাদেশের জাগ্রত কৃষক-শ্রমিক-ছাত্রজনতাকে প্রস্তুত থাকার আহবান জানান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ও পশ্চিম পাকিস্তানের নির্যাতিত জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টির জন্যই ৬ দফার অপব্যাখ্যা করা হচ্ছে, বাংলাদেশকে ঔপনিবেশিক অবস্থা থেকে রক্ষা করার জন্যই ৬ দফা। প্রধানত দেশের অপরাংশের কায়েমী স্বার্থবাদীরা বাংলাদেশের ৭ কোটি জনগণের ওপর ঔপনিবেশিক শোষণ চালিয়েছে এবং বাংলাদেশের সম্পদ পাচার করেছে।

এই সাংবাদিক সম্মেলনে আওয়ামী লীগ প্রধান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তান থেকে এক হাজার মাইল দূরে লাওস এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অপরাপর অংশে মার্কিন হামলার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন।

পাকিস্তান পিপলস্‌ পার্টির অন্তত ৬ জন জাতীয় পরিষদ সদস্য ২ মার্চ ঢাকা আসার জন্য পিআইএ-তে তাদের আসন সংরক্ষণ করেন। ওই ৬ জন জাতীয় পরিষদ সদস্য হলেন গোলাম মোস্তফা জাতোই, পীর গোলাম রসুল, মখদুম মোহাম্মদ জামান, মখদুম মোহাম্মদ আমিন, মালিক মোজাফফর খান এবং হাকিম আলী জারদারী। জাতীয় পরিষদ সদস্যদের ঢাকা আসার ব্যাপারে পিআইএ কড়াকড়িভাবে গোপনীয়তা পালন করছে।

জাতীয় পরিষদের অধিবেশনের আগেই প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান ১ মার্চ ঢাকায় এসে আওয়ামী লীগ প্রধান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে আলোচনা করবেন। উভয় নেতা দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি এবং শাসনতন্ত্র প্রণয়ন সম্পর্কে আলোচনা করবেন বলে জানা যায়।

পূর্ব পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ এবং সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আলতাফ হোসেন এক যুক্ত বিবৃতিতে নির্ধারিত তারিখে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন অনুষ্ঠান, গণতান্ত্রিক শাসনতন্ত্র প্রণয়ন ও অনুমোদন দান এবং সর্বোপরি জনপ্রতিনিধিদের কাছে শাসনক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানান। তারা এই দাবিতে সভা, সমাবেশ, বিক্ষোভ-মিছিল প্রভৃতির মাধ্যমে জনমত গঠন করে গণবিরোধী শক্তিসমূহের চক্রান্তের বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে পার্টির সকল ইউনিটের প্রতি নির্দেশ প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *