৬২৯ জন পাকিস্তানি তরুণীকে চীনে বিক্রি

কমপক্ষে ৬২৯ জন পাক তরুণীকে কনে হিসেবে চীনের বিভিন্ন নাগরিকের কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে বলে দাবী করেছে পাকিস্তানি।

 

গত ১৮ মাস ধরে চীনে এসব নারীকে পাচার করেছে পাকিস্তানের মানবপাচারকারীরা। গোয়েন্দারা অভিযোগ করেছে, এ বিষয়ে পাক প্রশাসনকে অবগত করা হলেও তারা আশানুরূপ কোনও ব্যবস্থাই গ্রহণ করে নি। যে কারণে চীনে নারী পাচার রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না।

 

চলতি বছরের জুনে পাচার হওয়া নারীদের একটি তালিকা তৈরি করে প্রশাসনকে দেয়াও হয়েছিল বলে জানিয়েছে পাক গোয়েন্দারা।

এ বিষয়ে এক পাক কর্মকর্তা বলেন, প্রশাসন থেকে যথেষ্ট কঠোরতা না দেখায় নি বলেই পাচারচক্রগুলো আরও বিস্তৃত হয়েছে। তাদের অপরাধের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলছে। কারণ এসব পাচারচক্রের সদস্য জানে, বিপদে পড়লেও প্রশাসনের অচলাবস্থার সুযোগ তাদেরকে বাঁচিয়ে দেবে।

 

গোয়েন্দাদের একটি নথিতে ৬২৯ পাক নারীর জাতীয় পরিচয়পত্র এবং তাদের চীনা স্বামীদের নাম ও বিয়ের তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে।

২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের এপ্রিলের মধ্যে ওই নারীদের কনে হিসেবে চীনে পাচার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

চলতি বছরের অক্টোবরে মানবপাচারের ঘটনায় ৩১ চীনা নাগরিককে অভিযুক্ত করেছিলেন ফয়সালাবাদের একটি আদালত। প্রায়ই পাকিস্তান-চীন সীমান্ত দিয়ে পাক তরুণীদের চীনে বিক্রি করে দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *