আন্তর্জাতিকবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

গ্রাহকের গোপন তথ্য পাচার করছে কিছু সাইট!

যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তিবিষয়ক সংবাদের ওয়েবসাইট দ্য ভার্জ জানিয়েছে, জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক ও প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগলকে ব্যবহারকারীর গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক অবস্থার তথ্য পাচার করছে কিছু ট্যাক্স ফাইলিং ওয়েবসাইট। গত মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) এ–সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভার্জ। খবর সিএনবিসি নিউজের।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ট্যাক্স অ্যাক্ট, ট্যাক্সস্লেয়ার ও এইচঅ্যান্ডআর ব্লক ব্যবহারকারীর এসব আর্থিক অবস্থার তথ্য ফেসবুকের মূল প্রতিষ্ঠান মেটা ও গুগলের কাছে পাঠিয়ে দিচ্ছে বলে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ডেটা-ড্রাইভেন জার্নালিজম প্রতিষ্ঠান দ্য মার্কআপের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে।

তদন্ত সূত্র গণমাধ্যমকে জানায়, ট্যাক্স ফাইলিং ওয়েবসাইট বা সফটওয়্যারগুলো তাদের কোড পিক্সেলের মাধ্যমে মেটার কাছে ব্যবহারকারীর নাম, ই-মেইল ঠিকানা, আয়ের তথ্য ও ফেরতের পরিমাণের তথ্য পাঠিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ ধরনের তথ্য পাঠানো ও গ্রহণ মূলত নীতির লঙ্ঘন। দ্য মার্কআপ তদন্তে আরও জানতে পেরেছে, ট্যাক্স অ্যাক্ট অ্যানালিটিক্যাল টুলের মাধ্যমে গুগলের কাছে ব্যবহারকারীর আর্থিক অবস্থার তথ্য পাঠিয়েছে। যদিও সেখানে কারও নাম উল্লেখ ছিল না।

এর আগে ২০১৮ সালে সিএনবিসি এক ব্যাখ্যায় জানায়, ফেসবুক একটি ছোট্ট পিক্সেল ব্যবহার করে। এটি মূলত ওয়েবসাইটে এমবেড করা থাকে। কেউ যখন ফেসবুকে ঢোকে, তখন এই পিক্সেল ফেসবুককে বার্তার মাধ্যমে তা জানিয়ে দেয়। এ ছাড়া আগে ভিজিট করা সাইটের তথ্যের ওপর ভিত্তি করে এই পিক্সেল ব্যবহারকারীকে বিজ্ঞাপন দেখার অনুমতি দেয়। বিজ্ঞাপনের অ্যালগরিদমকে শক্তিশালী করতে ফেসবুক ট্যাক্স ওয়েবসাইট থেকে এসব তথ্য ব্যবহার করতে পারে।

এমনকি ট্যাক্সের সেবা নেওয়া ওই ব্যবহারকারীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট না থাকলেও তা নিতে পারে। মূলত ব্যবহারকারীদের ফেসবুক যে নজরদারিতে (ট্র্যাক) রাখে, এটা তার একটা উদাহরণ। তবে দ্য মার্কআপে দেওয়া কিছু বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এটা ভুল হতে পারে।

ট্যাক্সস্লেয়ার ব্যবহার করে এমন একটি আর্থিক পরামর্শক ও সফটওয়্যার কোম্পানি রামসে সলিউশনের একজন মুখপাত্র বলেন, এটা কখনোই জানানো হয়নি যে ফেসবুক পিক্সেলের মাধ্যমে ব্যক্তিগত ট্যাক্স তথ্য সংগ্রহ করছে। রামসে সলিউশন স্মার্ট ট্যাক্স থেকে পিক্সেল ট্র্যাকিং ডি–অ্যাকটিভেট করার জন্য ট্যাক্সস্লেয়ারকে ইতিমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে।

এইচঅ্যান্ডআর ব্লকের একজন মুখপাত্র বলেছেন, তাদের প্রতিষ্ঠান ‘গ্রাহকের গোপনীয়তা’ রক্ষা করাকে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখে। পিক্সেলের মাধ্যমে গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য ভাগাভাগি কমাতে তাদের প্রতিষ্ঠান পদক্ষেপ নিচ্ছে।

দ্য মার্কআপ তদন্তে চলতি বছরের শুরুতে মোজিলা র‌্যালি বা ‘পিক্সেল হান্ট’-এর সন্ধান পায়। যেখানে অংশগ্রহণকারীরা একটি ব্রাউজারে এক্সটেনশন ইনস্টল করে পিক্সেলের মাধ্যমে মেটার সঙ্গে তথ্য ভাগ করা ডেটার একটি অনুলিপি পাওয়া গেছে।

মেটার একজন মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমাদের ব্যবসায়িক টুল ব্যবহার করে বিজ্ঞাপনদাতাদের ব্যক্তি সম্পর্কে সংবেদনশীল তথ্য পাঠানো উচিত নয়। এটি আমাদের নীতির পরিপন্থী। এ ধরনের ঘটনা যাতে না ঘটে, সে কারণে আমরা বিজ্ঞাপনদাতাদের আমাদের ব্যবসায়িক টুল ব্যবহারের সঠিক নির্দেশনা দিই। আমাদের সিস্টেম সম্ভাব্য সংবেদনশীল তথ্য ফিল্টার করার জন্য নকশা করা হয়েছে।’

গুগলের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ‘গুগল অ্যানালিটিকসের যেকোনো তথ্যই অস্পষ্ট। এর অর্থ এটা কোনো নির্দিষ্ট ব্যক্তির সঙ্গে সংযুক্ত নয়। আমাদের নীতিমালা ব্যবহারকারীকে শনাক্ত করা যায়, এমন তথ্য পাঠাতে গ্রাহকদের নিষেধ করে। এ ছাড়া ব্যক্তিগত সংবেদনশীল তথ্যের ভিত্তিতে বিজ্ঞাপন দেখানোর বিরুদ্ধে গুগলের কঠোর নীতি রয়েছে।’

এক বিবৃবিতে ট্যাক্স অ্যাক্টের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ‘গ্রাহকদের গোপনীয়তা আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা প্রচলিত আইন ও ইন্টারনাল রেভিনিউ সার্ভিসের (আইআরএস) প্রবিধান মেনে চলি। ফেসবুকের কাছে যাওয়া তথ্য কোনো ব্যক্তিগত স্তরের নয়, এগুলো সামগ্রিক স্তরে ব্যবহারের জন্য। গ্রাহকদের দেওয়া তথ্য ট্যাক্স অ্যাক্ট ব্যবহার করে না।’

এদিকে, বুধবার (২৩ নভেম্বর) এইচঅ্যান্ডআর ব্লক এক বিবৃবিতে বলেছে, গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য, যাতে কেউ নিতে না পারে এ কারণে সফটওয়্যার থেকে পিক্সেল সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে, এ বিষয়ে জানতে ট্যাক্সস্লেয়ারের একজন প্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করে সিএনবিসি। কিন্তু ওই প্রতিনিধি কোনো সাড়া দেননি।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please, Deactivate The Adblock Extension