যুক্তরাষ্ট্র

যুদ্ধে জড়ানোর ভয়ে ইউক্রেনকে স্টারলিংক সেবা দেওয়া হয়নি: ইলন মাস্ক

যুদ্ধ তৎপরতার সঙ্গে জড়িয়ে যাওয়ার ভয়ে গত বছর ইউক্রেনকে স্টারলিংক কমিউনিকেশন নেটওয়ার্কের সংযোগ দেওয়া হয়নি বলে দাবি করেছেন স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্ক।

তাকে উদ্ধৃত করে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়ার বড় নৌঘাঁটি ক্রিমিয়ার সেভাস্তপোলে স্টারলিংক পরিষেবা চালুর অনুরোধ করেছিল কিয়েভ। রাশিয়ার ওপর ড্রোন হামলা ঠেকাতে এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয় বলে সম্প্রতি এক বইয়ে অভিযোগ করার পর ইলন মাস্ক এমন কথা বললেন।

মাস্ক ‘শয়তানি কাজ’ করেছেন অভিযোগ করে ইউক্রেনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেন, তাঁর পদক্ষেপের ফলে রুশ হামলা বেড়েছে। এরপর প্রায়ই রাশিয়ার নৌযান থেকে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর হামলা চালায়।

তিনি আরও বলেন, স্টারলিংকে হস্তক্ষেপের মাধ্যমে রাশিয়ার সামরিক নৌবাহিনীর উপর ইউক্রেনের ড্রোন হামলায় বাধা দিয়েছেন ইলন মাস্ক। এর ফলে রুশ নৌবহর ইউক্রেনের শহরগুলিতে ‘কালিব্র ক্ষেপণাস্ত্র’ নিক্ষেপ করার সুযোগ পেয়েছে।

বিলিয়নেয়ার ওয়াল্টার আইজাকসনের আত্মজীবনীতে মাস্ক ও ইউক্রেনের প্রসঙ্গ উঠলে এই আলোচনার সূত্রপাত হয়। বইতে বলা হয়, রাশিয়ার নৌবন্দরে ইউক্রেন হামলা চালালে ক্রেমলিন পাল্টা পারমাণু আঘাত করতে পারে বলে ইলন মাস্ক আশঙ্কা করেন।

আইজাকসন বলেন, সেভাস্তপোলে রাশিয়ার জাহাজগুলোকে লক্ষ্য করে হামলার সময় ইউক্রেনের সাবমেরিন ড্রোন স্টারলিংকের সঙ্গে সংযোগ হারিয়ে ফেলে। ড্রোনগুলি কোনো ক্ষতি না করলেও তা সাগরে ভেসে যায়।

কক্ষপথে থাকা স্পেসএক্স স্যাটেলাইটগুলির সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করে স্টারলিংকের টার্মিনালগুলি। এটা বিশ্বজুড়ে ইন্টারনেট সংযোগ ও যোগাযোগ বজায় রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

বইতে তোলা দাবির জবাবে এক্স প্ল্যাটফর্মে ইলন মাস্ক বলেন, স্পেসএক্স ‘কোনো সেবা বন্ধ করেনি’। এসব অঞ্চলে আগে থেকে এই সেবা সক্রিয় ছিল না।

রাশিয়ার সাবেক প্রাইম মিনিস্টার দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেন, ‘আইজাকসনের বইয়ের বক্তব্য যদি সঠিক হয় তাহলে উত্তর আমেরিকার সবচেয়ে বুদ্ধিমান মানুষ হল মাস্ক।’

২০২২ সালের শুরুতে বড় আকারের সামরিক আগ্রাসন চালিয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চল দখলে নিয়েছে। যুদ্ধ এখনো চলছে। এর আগে একইভাবে ২০১৪ সালে ক্রিমিয়াকে দখল করে রাশিয়া।

মাস্ক বলেন, যুদ্ধে জড়িত হওয়ার জন্য স্টারলিংক নয়, নেটফ্লিক্স দেখা ও অনলাইন স্কুলের ক্লাসের মত ‘শান্তিপূর্ণ কাজের’ জন্য এটা তৈরি করা হয়েছে।

এই যুদ্ধ নিয়ে ব্যক্তিগত মত তুলে ধরে মাস্ক বলেন, খণ্ড খণ্ড ভূমির জন্য জন্য মারা যাচ্ছে ইউক্রেন ও রুশরা। এভাবে জীবন দেওয়া কোনোক্রমেই কাম্য নয়।

যুদ্ধের সমাপ্তি টানার বিতর্কিত পরিকল্পনা প্রস্তাব করে গত বছর বিশ্বকে উসকে দিয়েছিলেন মাস্ক। ক্রিমিয়াকে রাশিয়ার অংশ হিসাবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির পরামর্শও দেন তিনি। এমনকি দখলকৃত অঞ্চলের বাসিন্দারা কোন দেশের অংশ হতে চায় তা নিয়ে ভোটের প্রস্তাবও দেন।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please, Deactivate The Adblock Extension